আরশিনগর ফিউচার পার্ক-2021

আরশিনগর ফিউচার পার্ক-2021

ঢাকা-চট্টগ্রাম আর নেই। মিরসরাইয়ে প্রথমবারের মতো একটি আধুনিক বিনোদন কেন্দ্র ‘আরশিনগর ফিউচার পার্ক’ চালু হয়েছে। বিশিষ্ট সমাজকর্মী ও ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন দিদার নিজ উদ্যোগে এই আধুনিক বিনোদন কেন্দ্রটি স্থাপন করেছেন। 14াকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পূর্ব পাশে জোড়ারগঞ্জ ইউনিয়নের সোনাপাহাড় এলাকায় প্রায় ১ acres একর পাহাড়ি এবং বিনোদন কেন্দ্রের ব্যয় প্রায় কোটি কোটি টাকা।

মিরসরাইয়ের বিভিন্ন স্থানে বিনোদন কেন্দ্র থাকলেও এটি এখনও বিনোদনপ্রেমীদের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে ওঠেনি। সেই সুযোগের সদ্ব্যবহার করে নাসির উদ্দিন দিদার নিজ খরচে একটি আধুনিক বিনোদন কেন্দ্র স্থাপনের উদ্যোগ নেন। সাবেক গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি বৈশাখের প্রথম দিন পার্কটি উদ্বোধন করেন।

এ সময় বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পরে তিনি পার্ক পরিদর্শন করেন। জানা যায়, নাসির উদ্দিন দিদার ২০০ 2006 সালে বিনোদন কেন্দ্রের কাজ শুরু করেন। অবশেষে বিনোদন কেন্দ্রটি প্রায় শেষ হয়ে গিয়েছিল এবং এটি উদ্বোধন করা হয়েছিল। পার্কে প্রবেশ ফি মাত্র 20 টাকা।

আরশিনগর ফিউচার পার্ক সূত্রে জানা গেছে, বিনোদন কেন্দ্রে শিশুদের জন্য নগর দোলা এবং কার্টুনসহ বিভিন্ন রাইড রয়েছে। যা উত্তর চট্টগ্রামের অন্য কোন পার্কে পাওয়া যাবে না। এছাড়াও, স্পিডবোট, প্যাডেল বোট, ঘোড়া, জিরাফ এবং 18 বছরের বেশি বয়সীদের জন্য অন্যান্য আকর্ষণীয় রাইড।

কর্টেজ দূর পর্যটকদের জন্য। এছাড়াও, ভিতরে থাকবে কাবাব ঘর, বারবিকিউ এবং উন্নতমানের রেস্টুরেন্ট। পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা রয়েছে। বিনোদনপ্রেমীরা এখানে গভীর রাত পর্যন্ত ঘুরে বেড়াতে পারেন। আছে কৃত্রিম ঝর্ণা, সুন্দর ফুলের বাগান, আলোকসজ্জা। পার্ক রাতের আলোয় দিনের মত মনে হবে। উপজেলার কোথাও এমন বিনোদন কেন্দ্র নেই। যদিও মহামায়া এবং মুহুরী প্রকল্প এলাকায় পিকনিক স্পট রয়েছে।

যাইহোক, আবাসিক সুবিধার অভাবের কারণে, এটি এখনও বিনোদন প্রেমীদের জন্য নিরাপদ নয়। ৫ টি কর্টেজে সকল আধুনিক সুবিধা রয়েছে। যে কেউ তাদের পরিবারের সাথে এখানে রাত কাটাতে পারে। নিরাপত্তার জন্য প্রশিক্ষিত নিরাপত্তা কর্মী রয়েছে। মহাসড়কের পাশে হওয়ায় যোগাযোগে কোন অসুবিধা নেই। আরশিনগর ফিউচার পার্কের স্বত্বাধিকারী নাসির উদ্দিন দিদার জানান,

তিনি উপজেলার বিনোদনপ্রেমীদের কথা চিন্তা করে এই আধুনিক বিনোদন কেন্দ্রটি স্থাপন করেছেন। বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে নয়। নামমাত্র মূল্যে বিনোদন কেন্দ্রে প্রবেশের সুযোগ রয়েছে। গ্রাম থেকে যে কেউ শহরের বিনোদন কেন্দ্রের স্বাদ নিতে পারেন। এই Eidদে পরিবার, বন্ধুবান্ধব এবং পরিচিতরা দেখতে পারেন সুন্দর আরশীনগর ফিউচার পার্ক।

             যমুনা ফিউচার পার্ক কোথায়-

Leave a Reply

Your email address will not be published.