জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের  ভর্তি হতে কত পয়েন্ট লাগে

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের  ভর্তি হতে কত পয়েন্ট লাগে

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের 2020-2021 সেশনের সকল কলেজে অনার্স ভর্তির যোগ্যতা

—সারাদেশে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ২ হাজার ২৪৯টি সরকারি ও বেসরকারি কলেজ রয়েছে। যেখানে 80+ কলেজে স্নাতক (সম্মান) পড়ানো হয়। এসব কলেজের মধ্যে সরকারি ও বেসরকারি কলেজ রয়েছে। চাহিদার দিক থেকে সরকারি কলেজের প্রাধান্য বেশি। কিন্তু জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সব কলেজের শিক্ষার মান একই।

—এসএসসি ও এইচএসসি মিলিয়ে যাদের জিপিএ বেশি তারা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকারি কলেজে মনমত বিষয়ে অনার্স করতে পারবে। SSC 40% HSC 80% নম্বর সহ মেধা স্কোর দেওয়া হবে। যাদের পয়েন্ট একটু কম তারা ভালো সাবজেক্ট নিয়ে প্রাইভেট কলেজে পড়তে পারে। সেক্ষেত্রে অনার্সে ভর্তি হতে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের কলেজ চয়েস দিতে হবে। না বুঝে কম পয়েন্ট দিয়ে ভালো কলেজ চয়েস দিলে ভালো বিষয়ে অনার্স ভর্তি থেকে বঞ্চিত হতে পারে।

—জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে কলেজে স্নাতক (সম্মান) ১ম বর্ষে মানবিক শাখায় ভর্তির জন্য এসএসসি, এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ন্যূনতম জিপিএ ২.৫০% হতে হবে। বিজ্ঞান ও ব্যবসায় শিক্ষায় ভর্তির জন্য এসএসসিতে জিপিএ-৩ এবং এইচএসসিতে জিপিএ-২.৫০ লাগবে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের  ভর্তি হতে কত পয়েন্ট লাগে

—যাদের এসএসসি এবং এইচএসসি মিলিয়ে মোট পয়েন্ট (5-6) বা যাদের নম্বর কম কিন্তু অনার্সে ভর্তি হতে চান তাদের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত বেসরকারি কলেজে ভর্তির জন্য আবেদন করতে হবে। কারণ এই পয়েন্ট দিয়ে সরকারি কলেজে চান্স পাওয়া খুবই কঠিন। তবে গ্রাম পর্যায়ে সরকারি কলেজগুলোতে আবেদন করা যাবে। তবে যাদের পয়েন্ট খুব কম, তারা সরকারি কলেজে আবেদন না করাই ভালো, করলে পরের পোস্টে যেতে হবে।

—যাদের এসএসসি ও এইচএসসি সম্মিলিত পয়েন্ট (৭-৮) বা যাদের পয়েন্ট মোটামুটি ভালো তারা উপজেলা পর্যায়ের সরকারি কলেজে আবেদন করলে চান্স পাওয়ার সুযোগ থাকবে। তাদের পয়েন্ট অনুযায়ী কলেজ নির্বাচন করতে হবে এবং বিষয়ের সঠিক পছন্দ দিতে হবে। তবে জেলা পর্যায়ের সরকারি কলেজে এই পয়েন্ট দিয়ে চান্স পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এ ক্ষেত্রে কলেজ নির্বাচন ও বিষয় পছন্দের বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে।

—যাদের এসএসসি এবং এইচএসসি মিলিয়ে মোট পয়েন্ট (8-10) বা খুব ভালো পয়েন্ট তারা জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে সরকারি কলেজে আবেদন করতে পারবেন। তবে বিজ্ঞান ও ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের যেসব শিক্ষার্থী ভালো নম্বর পাবে তারা জেলা পর্যায়ে ভালো কলেজে চান্স পাওয়ার সুযোগ পাবে। যাইহোক, বিজ্ঞান বিভাগের ক্ষেত্রে, যদি আপনার 9.50 এর নিচে হয়, তবে আপনার একটি ভাল কলেজে আবেদন করা উচিত নয়। কারণ এবার জিপিএ-৫ এর সংখ্যা অনেক বেশি। বিজ্ঞানের শিক্ষার্থীদের মোট পয়েন্ট ১০ এর কম হলে ভালো কলেজে আবেদন করলেও কাঙ্খিত বিষয় নাও পেতে পারেন।

—জেলা ভিত্তিক কলেজে অনেক প্রতিযোগিতা আছে তাই ভালো ফলাফল দরকার। তবে উপজেলা ভিত্তিক সরকারি কলেজে প্রতিযোগিতা একটু কম, তাই যাদের পয়েন্ট একটু কম, তারা অবশ্যই উপজেলাভিত্তিক সরকারি কলেজে চয়েস দিতে হবে। তাহলে ভালো সাবজেক্টে ভর্তি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। যাদের পয়েন্ট কম বা বেশি তারা ভুলেও সরকারি কলেজে আবেদন করবেন না। সরকারি কলেজে চান্স পাওয়ার সম্ভাবনা কম।

—জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল জেলা ভিত্তিক বা উপজেলা ভিত্তিক সরকারি কলেজের অর্থ একই। কম পয়েন্ট নিয়ে জেলাভিত্তিক সরকারি কলেজে চান্স না পেলে রিলিজ স্লিপ দেওয়া হবে, এবং অন্যান্য কলেজে রিলিজ স্লিপে খুব কম আসন রয়েছে।

—যারা ১ম ও ২য় মেধা তালিকায় সুযোগ পাবেন না তারা পরবর্তী রিলিজ স্লিপের মাধ্যমে ৫টি কলেজে ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবেন। এই কলেজগুলিতে ভর্তি শূন্যপদ সাপেক্ষে হবে

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স ভর্তি প্রক্রিয়া 2021-2022

—ভর্তি পরীক্ষা ছাড়াই এসএসসি ও এইচএসসি ফলাফলের ভিত্তিতে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। প্রতিটি কলেজের জন্য একটি পৃথক মেধা তালিকা তৈরি করা হবে এবং পরীক্ষার্থীদের পছন্দের ক্রম অনুসারে ১ম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির বিষয় বরাদ্দ করা হবে।
একই প্রতিষ্ঠান/কলেজে একই বিষয়ে দুই বা ততোধিক আবেদনকারীর প্রাপ্ত ফলাফল একই হলে পর্যায়ক্রমে এই সকল আবেদনকারী।

—৪র্থ বিষয় সহ SSC এবং HSC পরীক্ষায় প্রাপ্ত GPA এর 40% এবং 80% প্রয়োজন হলে, SSC এবং HSC পরীক্ষায় প্রাপ্ত মোট নম্বরের যথাক্রমে 40% এবং 60%।

—যদি দুই বা ততোধিক আবেদনকারীর প্রাপ্ত ফলাফল একই হয়, তাহলে যার বয়স কম তাকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।

—2020-21 শিক্ষাবর্ষে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য, প্রার্থীর SSC বছর 2016 এবং 2017 এবং HSC বছর 2019 এবং 2020 থাকতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.