আজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস.Today Dhaka University Day.

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্মুক্ত 1921 সালের উম্মুক্ত হয়।1 লা জুলাই 1921 সালের 1লা জুলাই
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর থেকে প্রতি বছর 1 লা জুলাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস পালন করা হয়। বাংলাদেশের সর্বোচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হচ্ছে এই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। 3 পরিষদ, ও 12 টি বিভাগ নিয়ে এই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় যাত্রা শুরু করে। আজ 1 লা জুলাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের 100 তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস পালিত হচ্ছে ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মানুষকে শিক্ষিত করার লক্ষ্যে 1921 সালে আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে যাত্রা শুরু করে। বাঙালির মুক্তির সংগ্রামে প্রতিটি অধ্যায়ের সূচনা রয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কে কেন্দ্র করে। গড়ে তুলছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের 1952 সালের ভাষা আন্দোলনের ,1966 সালে আন্দোলন 6 দফা আন্দোলন । 1971 সালে একাত্তরে স্বাধীনতা কে কেন্দ্র করে যুদ্ধ কে সামনে রেখে নেতৃত্ব দিয়েছে ।100 বছরের ব্যবস্থা ব্যবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়তন বেড়েছে 12 টি অনুষদ, 12 ইউনিভার্সিটি 59 টিম গবেষণা এবং কেন্দ্র 19 টি আবাসিক হল, হোস্টেল 4 টি ।

43365 জন ছাত্র এবং 2010 শিক্ষক এর অধীনে এবারের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিপাদ্য গুণগত শিক্ষা ও উত্তরণ। প্রতিবছরের মতো এবারও বন্যা আয়োজন হবে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস কালারফুল ভাবে সাজানো হয়েছে। সমস্ত বর্তমান এবং প্রত্যেকটি শিক্ষার্থীদের আমন্ত্রিত করা হলো। প্রফেসর এ বিষয়ে একটি প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী দিনের শুরুতে কেক কেটে দেওয়া হবে ।


এরপর সংগীত বিভাগের সংগীত পরিবেশিত হবে ।পরে ভবন থেকে ঝর্ণা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া একটি প্রদর্শনী ও কার্জন হল ভবনের উত্তর-পূর্ব কান্দায় বায়োমেডিকেল, ফিজিক্স, এন্ড টেকনোলজি বিভাগ দ্বারা উদ্ভাবিত প্রযুক্তি একটি প্রদর্শনী ও থাকবে ।চারুকলা অনুষদ কর্তৃক আয়োজিত শিশুদের আঁকার প্রতিযোগিতা, ডাকসুর আয়োজিত ছাত্র সাঁতার ,প্রতিযোগিতা থাকবে। সকল বিভাগ ইউনিভার্সিটি ও তাদের নিজস্ব কর্মসূচি হাতে নিয়েছে ।আজকের এই দিনে বন্ধ থাকবে তবে ইউনিভার্সিটি এবং অন্যান্য দেশগুলো উন্মুক্ত থাকবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কে সংক্ষেপে বলা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের। অবস্থিত বাংলাদেশের একটি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় অনুষদ গবেষণা বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে পরিচিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় 1912 সালে তখনকার ব্রিটিশ ভারতের আ্রব্রিজে অবস্থান করে প্রচার করা হয়েছিল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষ আবেদন ছিল যেখানে দেশের সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছে সেখানে থাকা বিশেষ অবদান। সেখানে দেশ সরকার একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছে। সেখানে প্রতিষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় বিশেষ অবদান রেখেছিল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা সর্বাধিক সংখ্যক বাংলাদেশ বিজ্ঞান একাডেমি পদক জিতেছেন ।

এশিয়া শীর্ষে 150 টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে একটি 64 তম স্থান রয়েছে ।এখানে প্রায় 43 হাজার শিক্ষার্থী এবং 2060 জন শিক্ষক শুরু করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ এবং পূর্ব বাংলার প্রথম বিশ্ববিদ্যালয় 1921 সালের 1 লা জুলাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় একাডেমিক কার্যক্রম শুরু করে ।পূর্ববঙ্গ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছিল মধ্যবিত্ত সমাজ গঠন। মুসলিম মধ্যবিত্ত সমাজের পরিবর্তন সময় এবং পূর্ববঙ্গের সামাজিক ব্যবস্থা প্রবর্তনের নেতৃত্ব দেন ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পূর্ববঙ্গের মুসলিম সমাজে নবজাগরণ হয়েছিল। তার ফল রবীনাথ ঠাকুর রবীনাথ ঠাকুর, সৈয়দ আবুল মকসুদ, উচ্চশিক্ষায় বিরুদ্ধে বাংলাদেশের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পড়াশোনা করার জন্য বইটি লিখেছেন ঠাকুর গর্জন বেবির শ্রেণীবদ্ধ আগ্রহ ছিল জানিয়ে রাখা হয়েছিল। উচ্চশিক্ষা বিষয়ে কার্জনের মন্তব্য কলকাতায় হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করেছিল। শিলাইদহে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাদের সঙ্গে বিশেষ করে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মুখোপাধ্যায় এবং রাজনীতিবিদ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাথে বেশ কয়েকদিন ধরে বৈঠক নেন ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ব্যক্তি ও শিক্ষাবিদ বিভিন্ন প্রতিকূলতা কাটিয়ে উঠে বিশেষ ভূমিকা পালন করেছিলেন। বিশেষভাবে লক্ষণীয় হলেন ঢাকার নবাব স্যার সলিমুল্লাহ 1915 সালে নবাব সলিমুল্লাহ হঠাৎ করে মারা গেলেন। নবাব নবাব আলী চৌধুরী দায়িত্ব গ্রহণ করেন।পূর্ব বাংলার হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পক্ষে সমর্থন করেছিল। তাদের মধ্যে অন্যতম ঢাকার বালিয়াটির জমিদার জগন্নাথ হলের নামকরণ করা হয়েছিল তার পিতা জগন্নাথ রায় চৌধুরীর নামে। শিক্ষক নিয়োগ ও প্রশাসনের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান উপাচার্য পি.জে হার্ড দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন। 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ করেছিলেন হলেন নিরন্তর সরকার ,স্যার নবাবজাদা ,মুখোপাধ্যায় স্যার কে এম আফজাল, হাজার 1922 সালে খান বাহাদুর নাজির উদ্দিন আহমেদ প্রথম নির্বাচন হিসেবে নিযুক্ত হন বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক নিয়োগের জন্য মোট 10 টি বাছাই কমিটি গঠন করা হয়েছিল। ঢাকা কলেজের প্রথম অধ্যক্ষ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রথম গ্রন্থ হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের উপর দেওয়া হয়েছিল 1944 সালের পরে আব্দুস সাত্তার সিদ্দিকী ।ইতিহাস বিভাগে যোগদান কারী ডাক্তার রমেশ চন্দ্র মজুমদার এফ এম রহমান।

 বিজ্ঞান এবং দর্শন বিভাগের উপমহাদেশের বিশিষ্ট বিজ্ঞানীদের নিয়োগ দেয়।অধ্যাপক নরেশচন্দ্র সেনগুপ্ত প্রধান আইন বিভাগের প্রধান নিযুক্ত হন হাজার 912 সালে 1 লা জুলাই ঢাকা বিষয় যাত্রা শুরু হয়েছিল। 26 টি শিল্প শিক্ষা বিজ্ঞানের একজন শিক্ষক এবং 15 জন আইনবিদকে নিয়ে যাত্রা শুরু করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি,সংস্কৃতি, ইতিহাস ,রাষ্ট্রবিজ্ঞান, অর্থনীতি ,পদার্থবিজ্ঞান,গনিত,দশন,উদ্দু,রসায়ন,আইন ও শিক্ষা নামে 12 টি বিভাগ নিয়ে যাত্রা শুরু করে।
বিএ বিএসসি অনার্স এবং বিভিন্ন বিভাগের ক্লাসে মোট 8 জন শিক্ষার্থী নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস শুরু হয়। 

আবাসিক পরিবার 1921 সালের 1 লা জুলাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ঢাকা জগন্নাথ ও মুসলিম প্রতিষ্ঠিত হয় ছাত্র হিসেবে পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের শিক্ষা সমাজ এবং সাংস্কৃতিক জীবনের জন্য এবং কেন্দ্র হিসেবে তৈরি করা হয়েছিল। সেটি হল চার শতাধিক শিক্ষার্থীদের জন্য 4 বাড়িতে এবং 85 জনশিক্ষার্থীর প্রত্যেকটি আবাসিক শিক্ষক এর জন্য বিভক্ত ছিল। 

একটি আবাসিক শিক্ষক এর জন্য বিভক্ত ছিল দেশের বিভাগের পর প্রগতিশীল ছাত্র আন্দোলন এর জন্মস্থান 1969 সালের গণঅভ্যুত্থান প্রগতিশীল ছাত্র নেতা আসাদুজ্জামান শাহাদাতের বিনিময় এক বিশাল গণঅভ্যুত্থান অনুমোদিত হয়েছে। তাই 1লা জুলাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস হিসেবে পালিত হয়।
আমার এই পোস্টটি যদি আপনার ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। সকলে ভাল থাকবেন সুস্থ থাকবেন
ধন্যবা

Leave a Reply

Your email address will not be published.