বিশ্বকাপের ট্রফি তে কতটুকু সোনা আছে

তো বন্ধুরা আপনারা সকলে ভালো আছেন ।আজকে আমি আপনাদের সামনে ফিফা বিশ্বকাপ ও কাতার বিশ্বকাপের ট্রফির মূল্য কত ওজন কত সব বিষয় নিয়ে আপনাদের সামনে আমি হাজির হয়ে গেলাম। তো চলুন শুরু করা যাক


নিঃসন্দেহে অনেক আবেগ ও আনন্দে বিশ্বকাপ জয় করে ফুটবলের ট্রফি উঁচিয়ে ধরে। সব ফুটবলারের চিরকালের শবনম বিশ্বের যে কোন ফুটবলারের স্বপ্নে বিভোর একবার তাকে হাতি ছুঁয়ে দেখার সবার কপালেই সেই সুযোগ জোটে না। যারা পারেন তারা নিজেদের মানব জনম ধন্য মনে করে। সেই কারণেই ফুটবল দুনিয়ার সবচেয়ে সম্মানজনক তো বটেই তামান্ ক্ষেত্রে সর্বাধিক পুরস্কার মনে করা হয়। এই ফিফা বিশ্বকাপ ট্রফি কে আবেগ আর জয়ের প্রতীক। বিশ্বকাপ ট্রফি ইতিহাস নিয়ে চলুন একটু বিশ্লেষণ করার চেষ্টা করি ।

হাজার ১৯৩০ সালের বিশ্বকাপের প্রথম আসর থেকে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত বিশ্বকাপ জয়ী রজনী নামের একটি ধরেছে। কিন্তু প্রথমটি না শুধুমাত্র পাখিটির নাম ছিল ভিক্টোরিয় ।১৯৪৬ সালে বিশ্বকাপ এর প্রবক্তা জুলেরিমে কে সম্মান জানানোর জন্য চেঞ্জ করা হয় এই ট্রফির নাম ভিতর থেকে নামকরণ করা হয়। জুলেরিমে ট্রফি অনেক ঝড় ঝাপটা গিয়েছে এই জুলেরিমে ট্রফি উপর দিয়ে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় যাতে প্রতিটি চুরি না হয়ে যায় সে জন্য একটি জুতার বক্স এর ভিতর ঢুকিয়ে মাটির নিচে পুঁতে রাখা হয়েছিল।

১৯৩৮ এর বিশ্বকাপ জেতা ইটালিয়ান ফুটবলার কর্তার ১৯৪৬সালে ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপের চার মাস আগে এক প্রদর্শনী থেকে চুরি হয়ে যায়। এই ট্রফিটি ৭ দিন পর উদ্ধার করে একটি কুকুর। এরপরে সেলিব্রেটি হয়ে যায় এরপর প্রদর্শনের জন্য তৈরি ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ জয়ী দল। চার বছরের জন্য নিজের কাছে রাখতে পারত তবে শর্ত ছিল কোন দল চ্যাম্পিয়ন হলে সেটি চিরতরে সেই দলের হয়ে যাবে। ১৯৭০ সালে ব্রাজিল পূরণ করায় জুলেরিমে ট্রফি হয়ে যায়।

এখন পর্যন্ত উদ্ধার করতে পারেনি জুলেরিমে কে, ধারণা করা হয় চোর হয়তো একলা সেটিকে গুলিয়ে ফেলেছে। তাই জুলেরিমে ট্রফি স্মৃতি ধরে রাখার জন্য ইংল্যান্ডের কাছ থেকে সেই ট্রফি চড়া মূল্যে কিনে নেয় ফিফার ।১৯৭০ সালে প্রার্থী দেয়ার পর একটি নতুন উদ্যোগ নেয় ফিফা ।ডিজাইনের নকশা অনুযায়ী তৈরি করা হয় ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপ ট্রফি। খাটি সোনার তৈরি উচ্চতা ২৪ মিটার ওজন ৫ কেজি ওজন বৃদ্ধি করা হয়েছে।

এলাকায় ১৯৭৪ সাল থেকে শুরু করে। এখন পর্যন্ত সব বিশ্বকাপ জয়ী দলের নাম লেখা আছে। আমরা সবাই জানি বিশ্বকাপের দাম কত টাকা মূল্যের হিসাব। আর্থিক মূল্যের বের করার চেষ্টা করুন ৬ গ্রামের বেশি লম্বায় প্রায় ১৪ইঞ্চি উপাদান ১৮ ক্যারেট সোনা। নিচের দিকে সবুজ মেলা এমন জিনিসের আর্থিক মূল্য যে আকাশছোঁয়া হবে তা বলার অপেক্ষা রাখেনা।

১৯৭১ সালে যখন বানানো হয় তখন ওই পরিমাণ সোনার দাম ছিল 11 লক্ষ টাকার কিছু কম। কিন্তু তারপর থেকে প্রতিবার বিশ্বকাপের আগে সোনার দাম বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ট্রফি দাম বেড়ে যায় চলতি বছর 2018 বিশ্বকাপের সময় ট্রফি দান দাঁড়াচ্ছে প্রায় এক কোটি ২৪ লক্ষ টাকা ।অর্থাৎ এবারের চ্যাম্পিয়ন দের হাতে যে ট্রফি উড়বে এমনটাই মূল্য হবার কথা তবে এই ট্রফি হাতে ওঠার কারণে যে সম্মান প্রাপ্তি হবে তার মূল্য কখনোই হবে না। সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয় হলো চাইলে যে কেউ দেখতে পারবে না হোক না সে যত বড় ফুটবলার। ফিফার নিয়ম অনুযায়ী বিশ্বকাপ ফুটবল কোচিং স্টাফ উচ্চপদস্থ কর্মকর্তার যে কোন দেশের রাষ্ট্রপ্রধান হাতে নিতে পারবে ।

শুধু এই কারণে মেসি-নেইমার-রোনালদো ট্রফি ছুঁয়ে দেখতে পারিনি এখনই। এবারের বিশ্বকাপে মেসি নেইমার রোনালদো তার হাতে উঠবে বলে আপনি মনে করেন সে বিষয়ে আপনার মতামত আমাদেরকে কমেন্ট করে জানান।

আমার এই পোষ্টটি ভালো লাগলে কমেন্ট করে আমাকে উৎসাহ দিতে ভুলবেন না। অবশ্যই আর নিত্যনতুন রহস্য-রোমাঞ্চ এবং ভিন্ন রকম পোষ্ট পেতে আমাদের https://dailyinfo71.com/ ক্লিক করুন।


আমার এই পোস্টটি যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে, তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। ভাল থাকবেন, সুস্থ থাকবেন।
ধন্যবাদ

By Taher

আসসালামু-আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহি-ওয়াবারাকাতুহু ।আমি মোঃ আবু তাহের ইসলাম (আমান)। আমি গয়াবাড়ি স্কুল এন্ড কলেজ পড়াশোনা করি । আমি এসএসসি পরীক্ষার্থী 2022 সাল । আমার সাবজেক্ট একাউন্টিং। আমি ভবিষ্যতে যেকোনো একটি ভালো প্রতিষ্ঠানে চাকরি করে আমার জীবনকে পরিপূর্ণ আঙ্গিকে নতুন করে সাজানোর আশাবাদী । আমার পুরো জীবনটা হচ্ছে, একটা সরল অংকের মত । যতই দিন যাচ্ছে ততই আমি সমাধানের দিকে যাচ্ছি ইনশাআল্লাহ......নতুনের প্রতি মানুষের আকর্ষণ চিরস্থায়ী- তাই https://dailyinfo71.com/ ওয়েবসাইটে নিয়মিত লেখালেখি করি। ধন্যবাদ সবাইকে

Leave a Reply

Your email address will not be published.