শীতে যেসব খাবার এড়ানো ভালো ? শীতকালে কি কি খাওয়া যাবে না-

শীতে যেসব খাবার এড়ানো ভালো ? শীতকালে কি কি খাওয়া যাবে না-

সহজে হজম হয় এবং শরীরে চর্বি জমবে না এমন খাবার খেতে হবে।
একটি পুষ্টিবিষয়ক ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে শীতকালে যেসব খাবার সবচেয়ে ভালো এড়িয়ে চলা হয় তার একটি তালিকা এখানে দেওয়া হল।

গরম ক ফি:

শীতে এক কাপ গরম কফি মানেই অমৃত। তবে অনেকেই এ সময় কফি পান করেন না। কারণ কফিতে প্রচুর পরিমাণে ক্যাফেইন থাকে যা শরীরে পানিশূন্যতা সৃষ্টি করে। মানুষ সাধারণত গ্রীষ্মের তুলনায় এই সময়ে কম জল পান করে। তাই এই সময়ে কফি পান পানিশূন্যতার অন্যতম কারণ। আপনি যদি প্রচুর কফি খেতে চান তবে আপনি এর পরিবর্তে ‘হট চকলেট’ খেতে পারেন। আর কফি বা চা খেলেও পর্যাপ্ত পানি পান করতে হবে।

টমেটো:

গ্রীষ্মের শেষের দিকে পাওয়া টমেটো বেশ সুস্বাদু। শীতকালে, টমেটো দেখতে সুন্দর লাল টোস্টের মতো, কিন্তু স্বাদ ঠিক বিপরীত। তাই টমেটো গ্রীষ্মে না খেয়ে শীতকালে খাওয়াই ভালো।

বেইক করা খাবার:

এক কাপ গরম চকোলেট এবং শুধু বেকড বিস্কুট একটি দুর্দান্ত জুটি। এটা খেতে মজা, কিন্তু আমরা এটা হজম করার জন্য খুব একটা চিন্তা করি না। শীতকালে, স্যাচুরেটেড ফ্যাট ধীরে ধীরে হজম হয়। ফলে চর্বি জমে। এই সময়ে শারীরিক পরিশ্রম কম হয়, বেকড খাবারে প্রচুর পরিমাণে স্যাচুরেটেড ফ্যাট থাকে যা হজম হতে সময় লাগে। তাই এই মৌসুমে বেকড খাবার এড়িয়ে চলাই ভালো।

মরিচ:

শীতকালে নোনতা খাবার নাক বন্ধের জন্য খুব ভালো কাজ করে। তাছাড়া টকজাতীয় খাবার খেলে সর্দি-কাশি ও সাইনাসের সমস্যাও ভালো। তবে এটি পেটের জন্য মোটেও উপকারী নয়। সহজে হজম হয় এবং অতিরিক্ত নোনতা নয় এমন খাবার খেতে হবে। শীতে অতিরিক্ত লবণ খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। আর এমন খাবার খান যা আপনাকে শীত থেকে উষ্ণ রাখবে। এক্ষেত্রে গরম মরিচের পরিবর্তে গোলমরিচ ও আদা উপকারী।

প্যাকেটজাত শাকসবজি:

আগে থেকে কাটা, বাছাই করা এবং পরিষ্কার করা সবজি হাতের কাছে বেশ আরামদায়ক। তবে এগুলো মোটেও স্বাস্থ্যকর নয়। যদিও শাকসবজি কাটা, বাছাই এবং ধোয়া কঠিন, তবুও এতে ভিটামিন অক্ষত থাকে। তাই বাজার থেকে যত সহজে প্যাকেটজাত সবজি পাওয়া যায় না কেন, ব্যবহার না করাই ভালো।

Leave a Reply

Your email address will not be published.