সাত ভাগে কুরবানী দেওয়া যাবে কি? কুরবানী করার নিয়ম?

গরু কুরবানী করার দোয়াঃ-

বিসমিল্লাহি আল্লাহু আকবার, আল্লাহুম্মা মিনকা ও লাকা। উচ্চারণ : বিসমিল্লাহি আল্লাহু আকবার, আল্লাহুম্মা মিনকা ওয়া লাকা। উচ্চারণ : আল্লাহুম্মা তাকাব্বালহু মিন্নি কামা তাকাব্বালতা মিন হাবিবিকা মুহাম্মাদিও ওয়া খালিলিকা ইবরাহিম।

হাই বন্ধুরা আসসালামুআলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহি ওয়াবারাকাতুহু। আমি আপনাদের সামনে পবিত্র ঈদ-উল আযহা বা কোরবানির ঈদ সম্পর্কে আমি আপনাদের সামনে কিছু উপস্থাপন করব।তো বন্ধুরা আপনাদের মনে একটা প্রশ্ন জাগতে পারে যে, কুরবানী ঈদে সাত ভাগে কুরবানী দেওয়া যাবে কিনা।

সাত ভাগে কুরবানী দিলে কি কি নিয়ে করতে হবে। তো আপনারা সকলেই এই বিষয় নিয়ে টেনশনে পড়ে যান যে সাত ভাগে কুরবানী দেওয়া যাবে কি না। তো বন্ধুরা ।আর টেনশন করতে হবে না। এ জন্য আমি আপনাদের সামনে চলে আচ্ছি।তো বন্ধুরা সব বিষয়ে আমি আপনাদের সামনে তুলে ধরব ইনশাল্লাহ ।

কুরবানীসাত ভাগে কুরবানী করা যাবে কিনা এ ধরনের প্রশ্ন কিন্তু আমরা আগে শুনতাম না । কিছু কিছু স্কলারদের আলোচনায় বাড়িতে লোকজন হতে বিভ্রান্তিতে ভোগেন কিংবা এটা তৈরি হয় ।ফলে এ প্রশ্নটি করা হচ্ছে । আবহমান কাল থেকে আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশে হয়তো ছাগল কুরবানী দিয়েছে অথবা গরু কুরবানী দিয়েছে।

সর্বোচ্চ স্বাধ থাকে সেটা আমাদের সবার কাছে জানার ছিল ।এ নিয়ে সংশয় ছিল না ইদানিং কালে অনেকের মধ্যে এ বিষয়ে সংশয় জেগেছে। কেউ কেউ বলে থাকেন যে ভাগে কুরবানী গরু মহিষ বা উট এ এই ভাগে কুরবানী হবে না এটা অনেকে বলে থাকেন। এই কথাটা ঠিক নয় আপনি যদি ভাগে কুরবানী দিতে চান এটি জায়েজ আছে। এবং একটি অংশ হিসেবে গড়তে আপনি সর্বোচ্চ সাতটি ভাগে কুরবানী দিতে পারবেন ইনশাল্লাহ ।

কুরবানীসৈয়দ যাবর রাযিআল্লাহু তা’আলা আনহু থেকে বর্ণিতঃ- ”আমরা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাই সালাম এর সাথে হজ্ব করেছি সেখানে আমরা উট কুরবানি দিয়েছে সাত জন এর পক্ষ থেকে আর আমরা গরু কোরবানি দিয়েছে সাত জন এর পক্ষ থেকে।

উঠে ওনারা অংশগ্রহণ করতেন বা একটি গরুতে সাতজন অংশগ্রহণ করতেন ।
তো এই হাদিসে অনেকে বলে থাকেন যে, এটি হজের সময় বা সফরের সময়। কিন্তু মুখে অবস্থায় সাত ভাগে দেওয়া যায় না। আসলে এই কথাটা ঠিক নয়।

আবু দাউদ এর আরেকটি হাদীসে রয়েছেঃ- গরুর ক্ষেত্রের সর্বোচ্চ 7 ভাগে কুরবানী দেওয়া যায় এবং উটের ক্ষেত্র সর্বোচ্চ সাত ভাগে কুরবানী দেওয়া যায়।

হাদিস দ্বিতীয় যে হাদীসটি উল্লেখ করলাম এগুলো হচ্ছে জেনারেল স্টেটমেন্ট। সেখানে ভ্রমণ বা সফর এর কথা বলা হয়নি। বলা হয়েছে যে উটে সাত ভাগ দেয়া যায়। গরুতে সাত ভাগ দেয়া যায়। আমরা যারা ভাগে কুরবানী দিচ্ছি 7 জন মিলে একটি গরু আপনারা নিশ্চিন্তে কুরবানী দিতে পারেন সহি হাদিসের আলোকে।

সাত ভাগে কুরবানী দেওয়া নিয়মঃ-

নিয়ত আপনাদের ইনটেনশন টা ক্লিয়ার হতে হবে। প্রত্যেক ইনটেনশন থাকে শুধুমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য আমরা কোরবানি দিচ্ছে।

একজনের যদি ইনটেনশন থাকে যে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের কোরবানি দিচ্ছে। যদি আর একজনের নিহত ঝামেলা থাকে তাহলে কিন্তু কুরবানী তা কবুল না হতে পারে।

আমরা কুরবানী করব আল্লাহ তাআলার সন্তুষ্টি করার জন্য। কিন্তু কারো কিন্তু কারো নিয়তে যদি কোনো ঝামেলা থাকে তাহলে কুরবানী হবে না। তো বন্ধুরা আমাদের নিয়ত হবে যে আমরা সকলেই আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য কুরবানী দিব ।তাহলে আপনাদের কুরবানী টা হবে।

লৌকিকতা থাকলে তাহলে কুরবানী কবুল হবে না। কারণ কেউ যদি বলে আমার গরুটা সব থেকে বেশি বড়। আমার গরুর দাম অনেক। তাহলে তার উপরে কুরবানী হবে না। তাহলে তার কুরবানী কবুল হবে না।

আমার চেয়ে বড় গরু কেউ কুরবানীর দিতে পারেনি এলাকায় তাহলে তার কুরবানী কবুল হবে না।
তো বন্ধুরা এই জাতীয় মনোভাব যদি কারো মনে থেকে থাকে তাহলে তার কুরবানী কবুল হবে না।

তো বন্ধুরা আজকে এ পর্যন্তই সকলেই ভাল থাকবেন। সুস্থ থাকবেন এবং আপনার কোন মতামত থাকলে আমাদেরকে কমেন্ট করে জানাবেন।

ধন্যবাদ সবাইকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.